অন্ধকারের ভিজ্যুয়াল কিংবা মায়োপিক বিষণ্নতার ইশতেহার

অন্ধকারের ভিজ্যুয়াল কিংবা মায়োপিক বিষণ্নতার ইশতেহার

আমি অন্ধকার দেখতে পাই! অন্ধকারের ভিজ্যুয়াল কেমন হয়, আমার সেটা জানা! অনেকক’টা বছর আগে- প্রথম যখন আমার রুমমেটকে কথাটি বলেছিলাম, ও ধরেই নিয়েছিলো, আমার মাথাটা বোধহয় গেছে। তারপর থেকে বহুজনকে বলেছি এই অদ্ভূত ক্ষমতার কথা। খুব ব্যতিক্রম ছাড়া প্রায় সবাই নানাভাবে এড়িয়ে গিয়েছে। কেউ হয়তো বিশ্বাস করতে চেয়েছে। আবার কেউ.

শৈশবের শবে বরাতে গরম জিলাপির বিলাসিতা

শৈশবের শবে বরাত ও পকেটভর্তি গরম জিলাপির বিলাসিতা

শবে বরাত শব্দটির সাথে পরিচয় হয় শৈশবে। আমরা তখন চিটাগাংয়ের আবাস ছেড়ে গ্রামের বাড়ি মুন্সীগঞ্জে চলে এসেছি। বাবার সরকারি চাকরীর বদলি হলো ঢাকাতে। গ্রামের পরিবেশ আমার কাছে মোটেও রোমান্টিক টাইপ মনে হয় নি। শহুরে আমি যেমন জীবনে অভ্যস্ত ছিলাম, গ্রামে জীবন তারচে অনেক আলাদা ছিলো। সবচে বেশি অবাক লাগতো, গ্রামে.

ওস্তাদ হোটেল

ওস্তাদ হোটেল; বিরিয়ানির ঘ্রাণ যেখানে মানুষের গল্প বলে

যে কেউ অন্যের পেট ভরানোর ক্ষমতা রাখে। কিন্তু, তাদের মন ভরানোর ক্ষমতা থাকে কয়জনের! ওস্তাদ হোটেলের প্রবীণ মালিকের কন্ঠে এই সত্যভাষণ আমাকে চমকে দেয়। কেরালার কোন এক সাগর তীরের ছোট্ট এক হোটেল। যেখানে প্রতিদিন অসংখ্য মানুষ খেতে আসে। পাশেই লম্বা হয়ে আকাশের গায়ে হেলান দিয়ে দাঁড়ানো ফাইভ স্টার হোটেল বিচ.

ডাযনোসর ইউসোরাস

ডায়নোসররাও কখনো কাঁদে এই মুমূর্ষু ‘নেক্রপলিসে’

আজকে আমার সামনের সিটে বসা ডায়নোসরকে কাঁদতে দেখেছি আমি। সকাল ৭:৩০ এর ভার্সিটি বাস। বিআরটিসি থেকে ভাড়ায় নিয়ে আসা আমাদের অনেকের প্রিয় লালরঙা দোতলা। মিরপুর থেকে জাবি। এই বাসে নিত্যদিন যাতায়াত আমার। সেখানে চোখেজল সহ বসে থাকা ডায়নোসর দেখে ভ্যাবচ্যাকা খাওয়াটা দোষের কিছু না নিশ্চয়ই!  অবাক কান্ড, তাই  না? ভীষণ অবাক হওয়ার.

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়

নিজস্বতার দুর্ভিক্ষ ও সঙ্গদোষে একটি অভিশপ্ত রোবটের জন্ম

১ম জনঃ , দেখ দেখ! মালটা কড়া মাম্মা! ২য় জনঃ নজর দিবি না। এইটা তোর ভাবী হয়। ১ম জনঃ আইচ্ছা মামা। তোর নেক্সট এর অপেক্ষায় বইলাম। তহন কিন্তু আমার সম্পদ হইবো। ৩য় জনঃ এ্যাহ! আইছে! এইগুলা তোদের লেইগা না। বয়ফ্রেন্ড আছে। শালার***। ****বয়ফ্রেন্ডের মজাই মাম্মা..।” সংলাপগুলো দেশের সর্বোচ্চ পর্যায়ে শিক্ষা.

স্পোর্টস, মিডিয়া, বিজনেস ও বাংলাদেশ

স্পোর্টস, মিডিয়া, বিজনেস ও কলোনিয়াল হ্যাংওভারের ভাবনা

খেলাধুলার প্রধান উদ্দেশ্য আনন্দ দেওয়া। প্রাথমিক পর্যায়ে খেলা বলতে শুধু নির্মল বিনোদনকে বুঝাতো। কিন্তু, সময়ের সাথে সাথে পাল্টে গেছে খেলাধুলা বিষয়ক প্রাসঙ্গিকতার আকার আকৃতি ও ধরণ। পেশাদারিত্বের ম্যাজিকে এই বিনোদন মাধ্যমটি হয়ে উঠেছে একইসাথে ব্যবসার অন্যতম বৃহৎ অনুষঙ্গ। মিডিয়া ও সংশ্লিষ্ট প্রযুক্তিগত সংযোজন এনেছে বহুমাত্রিক ভিন্নতা। ফুটবলে বার্সেলোনা, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড,.