ভালোবাসার ধারাজল আর আমার প্রাত্যহিকতা

ভালোবাসা আমার কাছে ভীষণ রকমের মূল্যবান। ছোটবেলা থেকে ভালোবাসাশূন্য পরিবেশে বেড়ে উঠেছি বলেই হয়তো জানি, ভালোবাসা ঠিক কতোটা দামী। অনেক চেষ্টা করি প্রতিক্ষণ, যাতে আমার প্রতি যারা ভালোবাসা জমিয়ে রাখে বিভিন্ন সময় আর বিভিন্ন আকারে, তাদের জন্য কিছু করার। কিছু করতে না পারলেও ইচ্ছে রাখি কখনো সুযোগ পেলে তাদের পাশে দাঁড়াবো। কিন্তু, কিছু মানুষ আমার ভাবনা আর আকাঙক্ষার বাঁধ ছাড়িয়ে আমাকে ভালোবাসায় ভাসায়। যখন চরম বিপদে ঢাকায় এসে চকচকে এই শহরে ঠাঁই পাচ্ছিলাম না, তখন অল্পদিনের পরিচিত রুমমেট বলেছিলো, আরে চিন্তা করো না। ব্যবস্থা হয়ে যাবে। সেদিন কৃতজ্ঞ আমি খুব কেঁদেছিলাম। আজও কাঁদছি। যখন আমার কাঁধে ভরসার হাত রেখে কেউ বলে, আরে ধূর! টেনশন নিস না। আমি থাকতে তোর ভাবনা নেই। যখন কেউ বলে, তোরে চিন্তা করতে না করছি না। চিন্তা বাদ। তখন আমি আর নিজেকে ধরে রাখতে পারি না। যখন রাস্তার পাশে দাঁড়ানো ভেলপুরির ভ্রাম্যমান দোকানে দাঁড়িয়ে কেউ অকারণেই আমার প্লেটে একটা বাড়তি পুরি ঠেলে দেয়, তখন আমি নিশ্চুপ দেখি। হয়তো সে কখনো খেয়ালই করে নি। তবুও আমি জানি, নির্মল আন্তরিকতায় সিক্ত থাকে সেই সস্তার ভেলপুরিটি। যখন ছন্নছাড়া উড়নচন্ডী এই বোহেমিয়ান আমাকে কেউ বলে, ভালোবাসি, তখন আমি ভাবি, এতো এতো ভালোবাসা পাবার যোগ্যতা আমার কোথায়…। তবুও দু’হাত পেতে নিতে থাকি ভালোবাসা, স্নেহ, ভরসার এই ধারাজল। ভরে নিতে থাকি আমার ভালোবাসাশূন্য জীবন। জীবন ভালো থাকুক ভালোবাসায়। নির্মল ভালোবাসা বৃষ্টির মতো ঝরে পড়ুক আমাদের পৃথিবীতে। ভাসিয়ে নিয়ে যাক আমাদের ভেতরকার সমস্ত ক্লেদ আর জীর্ণতা। ভালো থেকো প্রিয় মানুষেরা। 🙂 🙂

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

* ছবির অক্ষরগুলো উপরের ঘরে লিখুন